চট্টগ্রাম, , বৃহস্পতিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০১৮

কক্সবাজারস্থ সাতকানিয়া-লোহাগাড়া সমিতির নির্বাচন

প্রকাশ: ২০১৭-১২-০১ ১৬:২৯:০৬ || আপডেট: ২০১৭-১২-০১ ১৬:২৯:০৬

সভাপতি ফরিদ আহমদ চৌধুরী সম্পাদক জেবর মুল্লুক

ইমাম খাইর
কক্সবাজার ব্যুরো

বহুল প্রতীক্ষিত কক্সবাজারস্থ সাতকানিয়া-লোহাগাড়া সমিতির দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) সকাল ৮ টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত এক টানা ভোট গ্রহণ হয়।

কক্সবাজার শহরের পেশকারপাড়াস্থ আবুজার আল গিফারী একাডেমীতে ভোট নেয়া হয়। মোট ২৪০৮ ভোটের মধ্যে কাস্ট হয়েছে ২১০৪ টি।

দীর্ঘ প্রায় ১৩ ঘন্টা ভোট গননা শেষে শুক্রবার ভোর ৫ টার দিকে ফলাফল ঘোষনা করে নির্বাচন কমিশন।

এতে সভাপতি পদে আলহাজ্ব ফরিদ আহমদ চৌধুরী (আনারস) ১১৭০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী হাজি মোহাম্মদ ইদ্রিস মিয়া পেয়েছেন ৮৫৭ ভোট।

সহ-সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন মো: আমিনুল ইসলাম চৌধুরী (বাই সাইকেল) ১১৫০ ভোট, মো: আব্দুর রহমান (কলম) ১০৪০ ভোট ও রফিক মাহমুদ (হরিণ) ১০৩২ ভোট।
সাধারণ সম্পাদক পদে, ৯৫৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন আলহাজ্ব জেবর মুল্লুক (চাকা)।

নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী নজরুল ইসলামের (দেওয়াল ঘড়ি) প্রাপ্ত ভোট ৮৫৩।

সহ-সাধারণ সম্পাদক পদে মো: শহিদুল ইসলাম (মোরগ) ১০৪২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হাবিবুর রহমানের (মাছ) প্রাপ্ত ভোট ৭১৩।

১১৮০ ভোট নিয়ে সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন শ্রমিক নেতা মো: শাহাব উদ্দিন (মোটর সাইকেল)। তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মিটন কান্তি (ট্রাক) পেয়েছেন ৫২৮ ভোট।

ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে মো: শহিদুল ইসলাম বাবুল (ক্যাপ) ১০৯২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী জহিরুল ইসলাম বাপ্পীর (ফুটবল) প্রাপ্ত ভোট ৫০২।

সহ-ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে মোহাম্মদ লোকমান (হাতপাখা) ৯৫৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। নিকটতম প্রার্থী বেদারুল করিম বেদার (হকিস্টিক) ৬৩৬ ভোট পান।

দপ্তর সম্পাদক পদে মো: শাহ আলম (দোয়াত কলম) নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রাপ্ত ভোট ৮৮৪। নিকটতম প্রার্থী মো: সিরাজুল ইসলামের (আলমিরা) প্রাপ্ত ভোট ৪৫২।

প্রচার সম্পাদক পদে মো: জহিরুল ইসলাম (টেলিভিশন) ৯৮৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

প্রতিদ্বন্দ্বী মো: আবদুল খালেক ৫৭৪ ভোট পেয়েছেন।

কোষাধ্যক্ষ পদে মোতাহের হোসাইন (বাস) ১২৯২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। প্রতিদ্বন্দ্বী জামাল উদ্দিন আহমেদ (মই) ৫২৩ ভোট পেয়েছেন।

সদস্য পদে নির্বাচিত হয়েছেন হামিদুল আজম বকুল (হাঁস), মো. ইউছুপ (ঘোড়া), আলমগীর হোসেন (মিনার), শহিদুল ইসলাম (মোমবাতি), মো. নাসির উদ্দিন সুমন (চশমা), মিজানুর রহমান (গোলাপ), রাশেদুল হক রাশেদ (ময়ুর), আহমদ কবির (হারিকেন)। এর আগে সহ-কোষাধ্যক্ষ পদে মোহাম্মদ শাহ আলম বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হয়েছেন। বাকি পদগুলোতে ভোট নেয়া হয়। নির্বাচনে সভাপতি-সম্পাদকসহ মোট ২১ পদে প্রার্থী ছিল ৪১ জন। ভোট গ্রহণের সুবিধার্থে মোট ৭টি বুথ করা হয়। পৃথক ১টি বুথ ছিল নারী ভোটারদের জন্য। এতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন সমাজসেবা কর্মকর্তা সিরাজ উদ্দিন। কমিশনের সদস্য ছিলেন এস্তাফিজুর রহমান ও মাস্টার বোরহান উদ্দিন।

১৯৮৭ সালে সমিতি প্রতিষ্ঠার পর থেকে এই প্রথম প্রত্যক্ষ নির্বাচন হওয়ায় সবার মাঝে আগ্রহ তৈরী হয়। সকাল থেকে রাত অবধি ভোট গননা পর্যন্ত প্রচুর লোক ভোটকেন্দ্র ঘিরে রাখে। প্রার্থীদের চেয়ে ভোটারদের আগ্রহের মাত্রা বেশি ছিল।

ভোট কার্যক্রম সার্বক্ষণিক তদারকিতে ছিলেন পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র মাহবুবুর রহমান চৌধুরী।

আপনার মতামত দিন....

ক্যালেন্ডার এবং আর্কাইভ