চট্টগ্রাম, , সোমবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

মাশরাফি মানেই চ্যাম্পিয়ন!

প্রকাশ: ২০১৭-১২-১৩ ০১:৪০:৩১ || আপডেট: ২০১৭-১২-১৩ ১১:৩৭:৪৮

মাশরাফি মানেই আস্থার প্রতিক মাশরাফি!। কারণ তিনি যে দলেই যুক্ত হন সে দলেই জ্বলে ওঠে তুমুলভাবে। এবারো তার ব্যতিক্রম হয়নি। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) পঞ্চম আসরে সাকিব আল হাসানের ঢাকা ডাইনামাইটসকে হারিয়ে নতুন এক ইতিহাস সৃষ্টি করলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। এ নিয়ে চারবার বিপিএলের শিরোপা জিতেছেন মাশরাফি। যা বিপিএলে আর কোনো অধিনায়ক এই রেকর্ড গড়তে পারেনি।

বিপিএলের প্রথম আসরে ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটর্সের হয়ে শিরোপা জেতেন মাশরাফি। দ্বিতীয় আসরেও মাশরাফির নেতৃত্বে শিরোপা জেতে ঢাকা। সেবার সাকিব খেলেছিলেন মাশরাফির দল ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটর্সে। এরপর তৃতীয় আসরে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সে যোগ দিয়ে দুর্বল দল নিয়ে বাজিমাত করেন মাশরাফি। নতুন ফ্র্যাঞ্চাইজিটিকে এনে দেন শিরোপা। সাকিব গত আসরে শিরোপা জেতান ঢাকা ডায়নামাইটসকে।

মঙ্গলবার বিপিএল ফাইনাল ম্যাচে সাকিবের ঢাকাকে হারিয়ে মোট চার বার শিরোপা জয়ী সেরা অধিনায়ক হিসেবে স্বাদ গ্রহণ করেন মাশরাফি। কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে অধিনায়কই বার বার শিরোপা জেতেন, এমন নজির কোথাও নেই! আজ ক্রিকেটবিশ্বকে সেই নজিরই দেখেছেন কোটি বাঙালির আস্থার প্রতীক মাশরাফি।

মহা তাণ্ডবের নাম ক্রিস গেইল!
ঢাকা: এলিমিনেটর ম্যাচে অপরাজিত সেঞ্চুরি করেছিলেন খুলনা টাইটানসের বিপক্ষে। বিপিএলের ফাইনালেও ক্রিস গেইল চালালেন তাণ্ডব। ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে খেললেন ৬৯ বলে ১৪৬ রানের অপরাজিত ইনিংস। বিস্ফোরক ইনিংসে গড়লেন এক গাদা রেকর্ড।

শুরুতেই সাকিব আল হাসানের কাছে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে ফিরেন আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান জনসন চার্লস। এই ধাক্কা সামলাতে গিয়ে কিছুটা খোলসে ঢুকে পড়ে রংপুর। তবে ক্রিস গেইল আর ব্রেন্ডন ম্যাককালাম একটু অপেক্ষার পর চালিয়ে খেলতে শুরু করেন।

আগের ম্যাচে জ্বলে উঠতে না পারা গেইল ফাইনালের মঞ্চে ঠিকই স্বরুপে ফিরেছেন। ৩৩ বলে হাফসেঞ্চুরি আর ৫৭ বলে সেঞ্চুরি পূর্ণ করে ক্যারিবিয় এই ব্যাটিং দানব থামেননি, ঝড় তুলে গড়েছেন ৬৯ বলে ১৪৬ রানের অপরাজিত ইনিংস। এটি বিপিএলে গেইলের পঞ্চম সেঞ্চুরি ও সর্বোচ্চ। সব মিলিয়ে বিপিএলের ১২তম সেঞ্চুরি এটি আর এবারের আসরের ৩য়।

গেইলের যত কীর্তি:
১। ইনিংসে গেইল ছক্কা মেরেছেন ১৮টি। ছাড়িয়ে গেছেন নিজেরই বিশ্বরেকর্ড। আইপিএলে অপরাজিত ১৭৫ রানের ইনিংসটির পথে মেরেছিলেন ১৭টি ছক্কা।
২। প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে ছুঁয়েছেন ১১ হাজার টি-টোয়েন্টি রান। ৯ হাজার রানও নেই আর কারও।

৩। টি-টোয়েন্টিতে এটি গেইলের ২০তম সেঞ্চুরি। ৭টির বেশি সেঞ্চুরি নেই আর কারও।

৪। প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে বিপিএলে করেছেন ছক্কার সেঞ্চুরি। ২৬ ইনিংসে তার ছক্কা এখন ১০৭ টি। ৫৪ ইনিংসে ৪৭ ছক্কায় দুইয়ে সাব্বির রহমান।

৫। এই নিয়ে এক ইনিংসে ১০টি বা তার বেশি ছক্কা ১৫বার মারলেন গেইল। ১০ ছক্কা দুবারের বেশি মারতে পারেননি আর কোনো ব্যাটসম্যান।

৬। বিপিএলে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংসে নিজেকেই ছাড়িয়ে গেলেন গেইল। এক ম্যাচ আগেই খুলনা টাইটানসের বিপক্ষে খেলা অপরাজিত ১২৬ রানের ইনিংস ছাড়িয়ে গেলেন অপরাজিত ১৪৬ রান করে।

৭। বিপিএলের ৫ আসরের ফাইনালে এই প্রথম সেঞ্চুরি করলেন কোনো ব্যাটসম্যান।

৮। বিপিএলে সব মিলিয়ে একাই ৫টি সেঞ্চুরি করলেন গেইল। একাধিক সেঞ্চুরি নেই আর কারও।

৯। এই ইনিংসের পথে সবচেয়ে কম ইনিংস খেলে বিপিএলে হাজার রানের রেকর্ড গড়লেন গেইল। লেগেছে তার মাত্র ২৬ ইনিংস।

১০। ব্রেন্ডন ম্যাককালামের সঙ্গে দ্বিতীয় উইকেটে ২০১ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়েছেন গেইল। যে কোনো উইকেটেই বিপিএল এই প্রথম দেখল দুইশ রানের জুটি। ২০১৩ বিপিএলে খুলনার হয়ে উদ্বোধনী জুটিতে শাহরিয়ার নাফিস ও লু ভিনসেন্টের ১৯৭ রানের জুটি ছিল আগের রেকর্ড।

১১। এর আগে টি-টোয়েন্টিতে ৯টি ফাইনাল খেলে গেইল করতে পেরেছিলেন মাত্র দুটি ফিফটি। দশম ফাইনালে করলেন প্রথম সেঞ্চুরি।

আপনার মতামত দিন...

ক্যালেন্ডার এবং আর্কাইভ