চট্টগ্রাম, , সোমবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

নিজামপুর কলেজের দুই দশক ধরে পরিত্যাক্ত ভবনে পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র!

প্রকাশ: ২০১৮-০২-১৫ ১৫:৪৯:০৬ || আপডেট: ২০১৮-০২-১৫ ২০:৪৮:৪৭

নতুন ছাত্রাবাস নির্মানের দাবী শিক্ষার্থীদের

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি

উত্তর চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মিরসরাইয়ের নিজামপুর কলেজ। এক সময় শিক্ষার্থীদের পদভারে মুখরিত ছিলো এই কলেজের ছাত্রাবাস। একটি দ্বিতল ও একটি টিনশেড় বিল্ডিং এ প্রায় শতাধিক শিক্ষার্থী এই ছাত্রাবাসে থেকে শিক্ষার্থীরা তাদের শিক্ষা জীবন অতিবাহিত করতো। প্রায় দুই দশক আগে ছাত্রাবাসে আবাসন সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয় শিক্ষার্থীরা। ছাত্রাবাস ভবনটিতে নিজামপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের কার্যক্রম পরিচালিত হয়। ২০১৬ সালে নিজস্ব ভবনে পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে স্থানান্তরিত হয়ে গেলে এখন একেবারেই খালি পড়ে আছে। পরিত্যক্ত হওয়া জরজীর্ন এই ভবনটিতে বর্তমানে কার্যক্রম চালু কোন ভাবেই সম্ভব হয়। উপরন্তু যে কোন সময় ভবন ধ্বসে দূর্ঘটনা ঘটার আশংকা রয়েছে।

নিজামপুর কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ রফিক উদ্দিন বলেন, কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক, স্নাতক, দুটি বিষয়ের অনার্স কোর্সে বর্তমানে ৫ হাজারের অধিক শিক্ষার্থী অধ্যয়ন করছে। এই বিশাল সংখ্যক শিক্ষার্থীদের জন্য দুটি ছাত্রাবাসের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। কলেজের যে ছাত্রাবাসটি রয়েছে সেটি দুই দশক ধরে পরিত্যক্ত হয়ে আছে। তার উপর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র থাকার কারনে সেটি সংস্কারও করা যায়নি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ভবনের আস্তর খসে পড়ছে। অনেক অংশে ফাটল ধরেছে। বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টির পানিতে একাকার হয়ে যায় পুরো ভবন। দরজা জানালা ভাঙ্গা। এমনতো অবস্থায় বসবাসের অযোগ্য হয়ে যায় ছাত্রাবাসটি।

আবুল হাসেম, আনোয়ার হোসেন সহ একাধিক এলাকাবাসী জানান, এক সময় এই ছাত্রাবাস পুরো দেশের মধ্যে প্রসিদ্ধ ছিলো। দেশের বিভিন্ন স্থানের শিক্ষার্থীরা ছাত্রাবাসে থেকে পড়াশোনা করেছেন। বিগত প্রায় ১৫ বছর যাবত ছাত্রবাসটি বন্ধ রয়েছে।

কলেজের এইচএসসি ২য় বর্ষেও শিক্ষার্থী সাফায়েত মেহেদী বলেন, অনার্স কোর্স চাল ুএবং সরকারী হওয়ার কারনে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের শিক্ষার্থীরা এই কলেজে ভর্তি হচ্ছে। ব্যক্তিগত উদ্যোগে আগে ৫ টি হোস্টেল চালু থাকলেও গত ১০ বছর ধরে একটিও চালু নেই। শিক্ষার সুযোগ অবারিত করতে নিজামপুর কলেজে হোস্টেল নির্মান খুবই জরুরী।

অনার্স ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ আল মাসুদ বলেন, আমার গ্রামের বাড়ি ফেনীর দাগন ভূইয়া উপজেলায়। সেখান থেকে এতো দুরে এসে ক্লাস করতে অনকে কষ্ট হয়। তাই কলেজ কর্তৃপক্ষ যদি ছাত্রবাসটি পুনঃনির্মাণ করে ছাত্রদের থাকার ব্যবস্থা হয় তাহলে আমার মতো অনেক শিক্ষার্থী উপকৃত হতো।

কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তাজুল ইসলাম আরিয়ান বলেন, নিজামপুর কলেজ ঐতিহ্যবাহী একটি কলেজ। এই কলেজে দুর-দুরান্তের শিক্ষার্থীদের জন্য ছিলো আবাসন সুবিধা হোষ্টেল। আমাদের অনেক বড়ভাই এই হোষ্টেলে থেকে পড়াশোনা করেছেন। কালের পরিক্রমায় হোষ্টেলটি বন্ধ রয়েছে প্রায় ২০-২১ বছর। এতে করে দুরের শিক্ষার্থীদের অনেক কষ্ট হচ্ছে। তাই কলেজ কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ করবো যাতে শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে নতুন হোষ্টেল নির্মাণ করা হয়।

আপনার মতামত দিন...

ক্যালেন্ডার এবং আর্কাইভ