চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৮

হামলাকারী ফয়জুলের কিছু তথ্য

প্রকাশ: ২০১৮-০৩-০৪ ১৮:৩৪:২৯ || আপডেট: ২০১৮-০৩-০৪ ১৮:৩৪:২৯

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও বিশিষ্ট লেখক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের ওপর হামলাকারী ফয়জুল হাসান পরিবারের সাথে বসবাস করতো টুকেরবাজার শেখপড়া গ্রামে।

স্থানীয়দের কাছে মোল্লাবাড়ি নামে পরিচিত এ বাড়িতে কোনও নম্বর না থাকলেও নেমপ্লেটে আব্দুল মুতালিব ও কাচা মঞ্জিল লেখা রয়েছে। মালিকের নাম হাফিজ আতিকুর রহমান।

ফয়জুলের পিতা মাওলানা আতিকুর রহমান টুকেরবাজারে মুখলেসিয়া মহিলা মাদ্রাসায় চাকরি করেন। মাওলানা আতিকের তিন ছেলে। এরা হলো আবুল, হাসান ও ফয়জুল। এদের মধ্যে ফয়জুল সবার ছোট।

জানা যয়, সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার কালিয়াপন গ্রামের হাফিজ আতিকুর রহমান তার পরিবার নিয়ে ওই বাড়িতে থাকেন প্রায় ২ বছর ধরে। এলাকায় তাদের বসবাস থাকলেও এলাকাবাসীর সাথে প্রায় কোনো যোগাযোগ কিংবা উঠাবসা ছিল না। চলতি পথে কারো কারো সাথে সালাম বিনিময় করতো তারা। তবে কারো বাসায় যাতায়াত কিংবা তাদের বাসায়ও কারো যাতায়াত ছিল না। ফলে এলাকায় অনেকটা নিভৃত পরিবার হিসেবেই তাদের জানতো এলাকাবাসী।

এব্যাপারে টুকেরবাজার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহীদ আহমদ বলেন, মাওলানা আতিকের পরিবার বছর দুয়েক আগে টুকেরবাজার শেখপাড়ায় আসে। এলাকার লোকজনের সাথে তাদের যোগাযোগ কম থাকায় কেউ বিশেষ কিছু বলতে পারছে না।

তিনি আরো বলেন, শনিবার রাতে র্যাব-পুলিশ অভিযান চালিয়ে হামলাকারী ফয়জুলের মামাকে আটক করে।

জালালাবাদ জোনের সহকারী কমিশনার মুনাদির আহমদ চৌধুরী বলেন, হামলাকারীর মামাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তার দেওয়া তথ্য যাচাই-বাছাই করা হবে।

উল্লেখ্য, শনিবার বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে সিলেট বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তমঞ্চে পেছন থেকে অধ্যাপক জাফর ইকবালের মাথায় ছুরিকাঘাত করেন ফয়জুল। পরে শিক্ষার্থীরা তাকে ধরে পিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেন।

আর অধ্যাপক জাফর ইকবালকে উদ্ধার করে প্রথমে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তারপর রাতেই হেলিকপ্টারযোগে ঢাকায় আনা হয়। এরপর থেকে সিএমএইচে চিকিৎসাধীন আছেন তিনি।

হামলার পরপরই বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন জালাবাদের কুমারগাঁওয়ের শেখেপাড়ায় ফয়জুরের ভাড়া বাড়িতে অভিযান চালায় পুলিশ। এসময় ফয়জুরের মামা সুনামগঞ্জ জেলা কৃষক লীগের যুগ্ম আহবায়ক ফজলুর রহমানকে আটক করা হয়েছে। এছাড়া একটি ল্যাপটপও জব্দ করা হয়েছে।

রবিবার ভোরে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার জগদল ইউনিয়নের কালিদারকাপন গ্রামে অভিযান চালায় র্যাব। এসময় তার এক চাচাকে আটক করা হয়। অপর এক অভিযানে ফয়জুলের ভাই হাসান ফয়জুলকে আটক করে র্যাব।

জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুর রহমান জানান, শনিবার রাত ১২টা নাগাদ শাবিপ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশের ওই বাসাটিতে তল্লাশি শুরু করে পুলিশ। সে সময় বাসাটি বাইরে থেকে তালা লাগানো থাকায় পুলিশ তালা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে। তালাবদ্ধ বাসার ভেতরে ফয়জুরের মামা ফজলুর রহমান অবস্থান করছিলেন। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রাত সোয়া ১ টার দিকে থানায় নিয়ে আসা হয়।

আপনার মতামত দিন...

ক্যালেন্ডার এবং আর্কাইভ

Open

Close