চট্টগ্রাম, , বৃহস্পতিবার, ২৪ মে ২০১৮

সিটিজি টাইমসের সম্পাদককে সিআইইউ’র উকিল নোটিশ, সম্পাদকের বক্তব্য

প্রকাশ: ২০১৮-০৪-২২ ১৮:৪২:৪৬ || আপডেট: ২০১৮-০৪-২৩ ১৯:২৬:৪৩

চট্টগ্রাম থেকে প্রকাশিত অনলাইন নিউজ পোর্টাল সিটিজি টাইম্‌স ডটকমের ( ctgtimes.com) সম্পাদক ও প্রকাশক মসরুর জুনাইদকে বিবাদী করে আইনগত নোটিশ পাঠিয়েছে চিটাগাং ইনডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটির (সিআইইউ), সহকারী রেজিস্ট্রার।

রবিবার (২২ এপ্রিল) দুপুরে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী  মোঃ আখতারুল ইসলামের মাধ্যমে তিনি এ নোটিশ পাঠান। নোটিশে আগামী ৩ দিনের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছে অন্যথায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

অনলাইন নিউজ পোর্টাল সিটিজি টাইম্‌স ডটকমে ২৯ মার্চ প্রকাশিত ভাড়া বাড়িতেই চলছে চিটাগাং ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি’র পাঠদান, এবং ২ এপ্রিল ক্লাবে চিটাগাং ইনডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটির সমাবর্তন ! ও  ভাড়া বাড়িতে ক্যাম্পাস, বিয়ের ক্লাবে সমাবর্তন: শিক্ষার মান নিয়ে প্রশ্ন  শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হওয়ায় তিনি এ নোটিশ পাঠান।

সিটিজি টাইম্‌স ডটকমের সম্পাদক ও প্রকাশক মসরুর জুনাইদ নোটিশের জবাবে উল্লেখ করেন,  ভাড়া বাড়িতেই চলছে চিটাগাং ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি’র পাঠদান প্রতিবেদনে আমরা উল্লেখ করেছি ” চট্টগ্রামসহ দেশের বিভাগীয় শহরগুলোতে এ ধরনের অসংখ্য বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। স্থায়ী ক্যাম্পাসে ফিরে যেতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কড়া নির্দেশনা থাকলেও তা আমলে না নিয়ে এবং বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন অমান্য করে যুগের পর যুগ শিক্ষাবাণিজ্যে ডুবে আছে বিশ্ববিদ্যালয় গুলো।”

এখানে চিটাগাং ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি’র কথা উল্লেখ করা হয়নি। চট্টগ্রামসহ দেশের বিভাগীয় শহরগুলোতে এ ধরনের অসংখ্য বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের কথা বলা হয়েছে । আমরা প্রতিবেদনে বলেছি “জামালখাঁন সড়কে নিচতলায় চশমার দোকান, পাশেই রোগ নির্ণয় কেন্দ্র এমন একটি ভবনের রয়েছে চিটাগাং ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি“। 

চিটাগাং ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি লিগ্যাল নোটিশে দাবি করেন ( তাদের বক্তব্যের হুবুহু) ” আপনি উক্ত সংবাদে আরো উল্লেখ করেছে UGC ও শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের নির্দেশনা থাকলে ও তাহা আমলে নেওয়া হয়নি। শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের কোন নির্দেশনা পরিচালনা না হয়ে থাকলে এর জবাব দিহীতা চাইবার অধিকার শিক্ষা মন্ত্রনালয় যথাযথ সংরক্ষন করে এবং শিক্ষা মন্ত্রনালয় যথারীতি এ সংক্রান্ত তদারকিতে আছেন। কিন্তু আপনারা এরকম একটা প্রতিষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে এ ভাবে মিথ্যা, বানোয়াট, উদ্দেশ্য প্রনোদিত সংবাদ প্রচার করে এহেন মহতি প্রতিষ্ঠানের সুনাম ক্ষুণ্ণ করতে পারেন না।”  

এই বিষয়ে সিটিজি টাইম্‌স ডটকমের সম্পাদক ও প্রকাশক মসরুর জুনাইদের বক্তব্য, প্রতিবেদনের কোথায়ও আমারা UGC ও শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের নির্দেশনা না মানার কথা উল্লেখ করিনি । শুধু আমরা UGC ও শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের আইনে কি আছে তা উল্লেখ করেছি।

এ ছাড়া লিগ্যাল নোটিশে তারা দাবি করেন, আমরা তাদের সাথে কথা না বলে তাদের বক্তব্য প্রচার করেছি।

এই বিষয়ে সিটিজি টাইম্‌স ডটকমের সম্পাদক ও প্রকাশক মসরুর জুনাইদের বক্তব্য, এই বিষয়ে ২৯ মার্চ  (প্রতিবেদনে উল্লেখিত মতামত) জানতে চিটাগাং ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটির ভাইস চ্যান্সেলরকে  ০১৭২৯০১১৪০০-২ নম্বর থেকে ভাইস চ্যান্সেলরের ফোন নম্বর ০৩১ ৬১১২৬২ তে যোগাযোগ করা হলে জানানো হয়, সমাবর্তন কাজে ‘স্যার’ বাহিরে । মোবাইল নম্বর আছে কি না জানতে চাইলে বলেন, সহকারী রেজিস্ট্রার আজুমান বেগম লিমা সাথে যোগাযোগ করতে । এর পর উক্ত প্রতিবেদকের সাথে ২৯ মার্চ বিকালে ০১৭২৯০১১৪০০-২ নম্বর থেকে সহকারী রেজিস্ট্রার আজুমান বেগম লিমার সাথে ০১৭১৬৩১০০১৭ উক্ত নম্বরে দীর্ঘ কথা হয় । এবং তার বক্তব্য নেওয়া হয় ।

২ এপ্রিলের প্রতিবেদনে ( ক্লাবে চিটাগাং ইনডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটির সমাবর্তন )  নগরের সিআরবি এলাকায় অবস্থিত হল টোয়েন্টিফোরকে কনভেনশন হলের স্থানে রেস্টেুরেন্ট উল্লেখ করা হয়েছিল। এই ভুল নজরে আসার সাথে সাথে আমরা তা সংশোধন করি ।

এছাড়া চিটাগাং ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি লিগ্যাল নোটিশে আরো দাবি করেন ( তাদের বক্তব্যের হুবুহু ) ‘‘ ০৩/০২/২০১৮ ইং তারিখে একই অনলাইন পত্রিকায় (ভাড়া বাড়িতে ক্যাম্পাস, বিয়ের ক্লাবে সমাবর্তন: শিক্ষার মান নিয়ে প্রশ্ন) প্রতিবেদনে আপনি/আপনার প্রতিবেদক বাংলাদেশ সরকারের উদ্দেশ্য ও সামর্থ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন যাহা সম্পূর্ণ আপনাদের এখতিয়ার বহির্ভূত।”  

এই বিষয়ে সিটিজি টাইম্‌স ডটকমের সম্পাদক ও প্রকাশক মসরুর জুনাইদের বক্তব্য, ”ভাড়া বাড়িতে ক্যাম্পাস, বিয়ের ক্লাবে সমাবর্তন: শিক্ষার মান নিয়ে প্রশ্ন”  এটি ছিল সম্পাদকীয় । আমরা মূলত সম্পাদকীয়তে বাংলাদেশের প্রথম সারির পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে উদ্ধৃতি নিয়ে লিখে থাকি। এখানে আমার নিজস্ব তেমন কোন বক্তব্য থাকে না।

যেমন, দেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়লেও মানের বিষয়টি চরমভাবে উপেক্ষিত হচ্ছে। মোটামুটি গ্রহণযোগ্য একটি আইন থাকলেও এর প্রয়োগ সেই অর্থে নেই। আইনটি কার্যকরের চেষ্টা, উদ্যোগ বা সামর্থ্যও নেই শিক্ষা মন্ত্রণালয় বা বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি)। এই অংশটুকু দৈনিক প্রথম আলোতে প্রকাশিত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় চলছে যেনতেনভাবে থেকে নেওয়া। প্রশ্ন আমরা তুলিনি; দৈনিক প্রথম আলো তুলেছে।

এছাড়া সম্পাদকীয়তে  বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার মান নিয়ে গবেষণা!  অংশটুকু বাংলা ট্রিবিউন থেকে নেওয়া। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের র‌্যাঙ্কিং নিয়ে প্রশ্ন  অংশটুকু  দৈনিক যুগান্তর থেকে নেওয়া।

চট্টগ্রামের প্রথম ও শীর্ষস্থানীয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল “সিটিজি টাইমস”। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে চট্টগ্রামসহ দেশ-বিদেশের সংবাদ প্রচারের স্বকীয়তায় অল্পদিনেই পাঠকদের কাছে পৌঁছে যায় “সিটিজি টাইমস”। সিটিজি টাইমস কখনো একতরফা, মনগড়া ভিত্তিহীন’ সংবাদ প্রচারে বিশ্বাস করে না। সংবাদ প্রচারের সব নিয়ম মেনে সিটিজি টাইমস সংবাদ প্রচার করে ।

এ ছাড়া সিটিজি টাইমস গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য অধিদপ্তরে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত। এটি বাংলাদেশ সরকারের নিবন্ধিত কোম্পানী দ্বারা পরিচালিত ।

আপনার মতামত দিন...

ক্যালেন্ডার এবং আর্কাইভ

Open

Close